ভোলার তজুমদ্দিনে নুরানি মাদ্রাসার শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা

ফারহান-উর-রহমান সময়, তজুমদ্দীন প্রতিনিধি: ভোলার তজুমদ্দিনে চাঁদপুর ইউনিয়নে আড়ালিয়া গ্রামের মহিমা খাতুন নুরানী ও হাফিজিয়া মাদ্রাসার সাত বছর বয়সি শিশু শিক্ষার্থীকে পাশ্ববর্তী দোকানদার কর্তৃক ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে শিক্ষার্থীর পিতা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে বিচারের আশ্বাসে দুইদিন থানায় আসতে দেয়নি স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল। মামলা সুত্রে জানা যায়, ২৫ অক্টোবর রবিবার সকালে আড়ালিয়া গ্রামের মহিমা খাতুন নুরানী ও হাফিজিয়া মাদ্রাসার সাত বছর বয়সি শিশু শিক্ষার্থীকে প্রলোভন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে পাশ্ববর্তী দোকানদার একই এলাকার মৃত মোফাজ্জলের ছেলে সেলিম (৪০) দোকানের ভিতরে নিয়ে শরীরের কাপড় খুলে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

বন্ধ দোকানে শিশু শিক্ষার্থীর ডাক-চিৎকার শুনে পাশ্ববর্তী লোকজন এগিয়ে আসলে সেলিম পালিয়ে যায়। মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা মৃত নুরুল হক চৌকিদারের ছেলে মোঃ ইয়াছিন এ ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার উদ্দেশ্যে বিচার শালিশের নামে ২দিন ওই শিশুর পরিবারকে থানায় আসতে দেয়নি। অবশেষে বিচার না পেয়ে ২৭ অক্টোবর শিশুর পিতা কাজল মিয়া বাদী হয়ে ধর্ষণের চেষ্টাকারী সেলিমকে আসামী করে তজুমদ্দিন থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি মোঃ ইয়াছিন মিয়ার কাছে জানতে চাইলে থানায় আসতে না দেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে তিনি বলেন, অপরাধীর বিচার হোক তা আমি চাই। তজুমদ্দিন থানার ওসি (তদন্ত) এনায়েত হোসেন জানান, বাদীর লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ সংশোধিত/ ০৩ এর ১০ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে, মামলা নং ০৭। আসামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।