চাঁদপুর লঞ্চ ঘাটে টি-আইদের নিরব চাঁদাবাজি

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ চাঁদপুর লঞ্চঘাটে টি-আইদের নিরব চাঁদাবাজি চলছে। টি-আই মাহতাব আর শাহ আলমের চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ লঞ্চ কর্তৃপক্ষ। প্রতি লঞ্চ থেকে তারা কমপক্ষে ২ শ টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছে। ঢাকা থেকে চাঁদপুরে আসা ও চাঁদপুর থেকে ঢাকার পথে ছেড়ে যাওয়া প্রতিটি লঞ্চ থেকে এমনি ভাবে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। মাহতাব ও শাহ আলম দু জন টি-আই তারা এ চাঁদাবাজির জন্য তাদের ডিউটি পর্যন্ত ভাগ বাটোয়ারা করে নিয়েছেন। দু জন টি-আই এক সাথে ঘাটে দায়িত্ব পালন করার কথা থাকলে ও তারা ডিউটি ভাগ করে নিয়েছেন সাপ্তাহিক ভাবে।

চাঁদপুর থেকে ও চাঁদপুর ঘাট ধরে প্রতিদিন ৪০/৫০ টির মতো লঞ্চ চলাচল করে থাকে গভীর রাত পর্যন্ত। আর এসব লঞ্চ থেকে টি-আই মাহতাব ও শাহ আলম নাস্তা ও রিক্সা ভাড়া বাবদ ২ শ টাকা করে হাতিয়ে নিয়ে থাকে। মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় ঘাটে গিয়ে দেখা যায় টি আই শাহ আলম শাহ আলী প্লাস লঞ্চের মালিক পক্ষের প্রতিনিধি শাহজাহানের কাছ থেকে পল্টুনে হাটতে হাটতে টাকা নিয়ে পকেটে গুজে নিচ্ছে। কিছুদিন পূর্বে আব এ জম জম লঞ্চের কাউন্টার থেকে টাকা নিলে তাকে সাংবাদিকরা জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন কতৃপক্ষ আমাকে রিক্সা ভাড়া দিয়েছে।

কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করলে তারা জানান দু টি আই প্রতিদিন এভাবে এসে জ্বালাতন করে টাকার জন্য। না দিলে লঞ্চের বিরুদ্ধে উল্টো পাল্টা কথা বলে। তাই আমরা টাকা দিয়ে থাকি। জানা গেছে টি-আই শাহ আলম সদরঘাটে দায়িত্ব পালন করা কালে এ ধরনের দূর্নীতি করার কারণে তাকে চাঁদপুরে বদলি করা হয়। চাঁদপুরে এসে তার দূর্নীতির মাত্রা আরো বেরে গেছে, একই অবস্থা টি-আই মাহতাবের ক্ষেত্রেও। তারা দু জন মিলে প্রতিটি লঞ্চ থেকে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। মাহতাব লঞ্চ ঘাটে ডিউটিতে না থাকলে তাকে হরিণা ঘাটে ঘুরাঘুরি করতে দেখা যায়। সেখানে গিয়ে ও অর্থ হাতিয়ে নেয়ার বাণিজ্যে মেতে থাকেন বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়।