যোগাযোগ উন্নত হলে মানুষের অবস্থারও উন্নয়ন হবে: প্রধানমন্ত্রী

যোগাযোগ ব্যবস্থার যতো উন্নয়ন হবে, মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থারও ততো উন্নয়ন হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে মাগুরা, যশোর ও নারায়ণগঞ্জে তিনটি সেতু এবং পাবনায় মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল আলম বকুল স্বাধীনতা চত্ত্বর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

করোনার মাঝেও থেমে নেই দেশের উন্নয়ন কর্মকান্ড। মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলায় মধুমতি নদীর ওপর ‘শেখ হাসিনা সেতু’। প্রায় ৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে ৬শ’ মিটার দীর্ঘ সেতুটি। এর মাধ্যমে মাগুরা, নড়াইলসহ আশপাশের এলাকার মানুষের জন্য ফরিদপুর হয়ে ঢাকার সাথে যোগাযোগ এখন আরও সহজ।

অন্যদিকে নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদীর দুই পাড়ের মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে নির্মিত হয়েছে ৫শ’ ৭৬ মিটার দীর্ঘ গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতিক সেতু। আর যশোরের অভয়নগরবাসীর স্বপ্নের ভৈরব সেতু। যার দৈর্ঘ্য ৭০২ মিটার।

সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে সেতু তিনটির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেন, যশোর, মাগুরা ও নারায়ণগঞ্জের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে গতিশীলতা আনতেই নির্মিত হয়েছে এই তিন সেতু।

বক্তব্যে দেশের মানুষকে উন্নত জীবন দেয়ার দৃঢ় প্রত্যয় জানান সরকারপ্রধান। বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিশ্চিতে পুরো দেশে যোগাযোগ নেটওয়ার্ক গড়তে কাজ করে যাচ্ছে সরকার।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে আবারও সবাইকে সতর্ক করেন প্রধানমন্ত্রী। জানান, ভ্যাকসিনের জন্য বুকিং দেয়া হয়েছে।